বৃহস্পতিবার   ১৯ মে ২০২২   জ্যৈষ্ঠ ৫ ১৪২৯   ১৭ শাওয়াল ১৪৪৩

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
সর্বশেষ:
জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কার পাওয়ায় শুভেচ্ছায় সিক্ত ইবি ভিসি জিআই সনদ পেলো বাগদা চিংড়ি বাজেট অধিবেশন বসছে ৫ জুন অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধ নিয়ে সরকারের নতুন সিদ্ধান্ত হজের নিবন্ধনের সময় বাড়লো
১২৪

পাকা ঘর পাচ্ছে আরও ১ লাখ ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবার

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১২ জানুয়ারি ২০২২  

মুজিববর্ষ উপলক্ষে ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার’ হিসেবে আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় এ বছরই আরও এক লাখ ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবারকে পাকা ঘর দেওয়া হবে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সিনিয়র সচিব তোফাজ্জল হোসেন মিয়া যশোরে অনুষ্ঠিত একটি প্রশিক্ষণ কর্মশালায় এসব তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ভাসমান মানুষের নিজের ঠিকানা করে দিচ্ছে আশ্রয়ন প্রকল্প। মুজিববর্ষে কেউ গৃহহীন থাকবে না প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার পর সারাদেশে সাত লাখ ঘর নির্মিত হয়েছে। এ বছর আরও এক লাখ ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর এ উদ্যোগ সুবিধা বঞ্চিত মানুষের মুখে হাসি এনে দিয়েছে৷ আমাদের সবার দায়িত্ব সরকারের সিদ্ধান্ত স্ব স্ব অবস্থানে থেকে সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করা।

মঙ্গলবার (১১ জানুয়ারি) সকাল দশটায় যশোর পিটিআই অডিটোরিয়ামে মুজিববর্ষ উপলক্ষে আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের আওতায় তৃতীয় পর্যায়ে গৃহ নির্মাণ কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে বিভাগীয় কমিশনার এবং জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে প্রশিক্ষণ কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। 

খুলনা বিভাগীয় কমিশনার ইসমাইল হোসেনের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ মোহসীন ও আশ্রয়ন-২ প্রকল্প পরিচালক আবু সালেহ মোহাম্মদ ফেরদৌস খান।

তোফাজ্জল হোসেন মিয়া আরও বলেন, প্রকল্পটি গৃহহীন মানুষের জন্য শুধু বাসস্থানই নয়, সুপেয় পানি ও স্যানিটেশন সুবিধাও দিয়েছে৷ যা দেশকে এসডিজির লক্ষ্যে পৌঁছাতে সহায়তা করছে৷ সবাইকে গৃহ প্রদানের মাধ্যমে পর্যায়ক্রমে জেলা উপজেলাকে ভূমিহীন-গৃহহীন মুক্ত ঘোষণা করা হবে৷
বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ মোহসীন বলেন, ভূমিহীনদের জন্য খাস জমি পাওয়া না গেলে জমি কিনে ঘর নির্মাণ করে পুনর্বাসন করা হবে৷ আশ্রয়নের যাতায়াতের জন্য রাস্তা নির্মাণ ও সংস্কারের জন্যও অর্থ বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে ৷

প্রশিক্ষণ কর্মশালায় যশোরের জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খান, কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক সাইদুল ইসলাম, মেহেরপুরের জেলা প্রশাসক ডক্টর মুনছুর আলম খাঁন, ঝিনাইদহের জেলা প্রশাসক মজিবর রহমান, চুয়াডাঙ্গার জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার, মাগুরার জেলা প্রশাসক ডক্টর আশরাফুল আলম, খুলনা বিভাগের ছয়টি জেলার স্থানীর সরকার বিভাগের উপপরিচালক,  অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব), নির্বাহী প্রকৌশলী গণপূর্ত, জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা এবং ছয়টি জেলার ৩২ টি উপজেলার উপজেলা নির্বাহী অফিসার, সহকারী কমিশনার (ভূমি), প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ও উপজেলা ইঞ্জিনিয়াররা অংশ নেন৷

প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শেষে বিকেলে সচিবদ্বয় যশোর সদর উপজেলার চাঁচড়ায় নির্মিত শতবর্ষ আশ্রয়ন প্রকল্প এবং নরেন্দ্রপুর ইউনিয়নের সাহাবাটি মৌজায় নির্মাণাধীন আশ্রয়ন ৭১ প্রকল্প ঘুরে দেখেন৷ এর মধ্যে চাঁচড়ায় একশ’টি ঘর নির্মাণ করে সুবিধাভোগীদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে৷ 

সাহাবাটি মৌজায় এক একর ৭৮ শতক জমি উদ্ধার করে ৭১ টি ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে। যা চলতি বছরের মার্চ মাসে শেষ হবে। এরপর দু’শতক জমির দলিল, নামজারির খতিয়ানসহ সুদৃশ্য রঙিন টিনের ছাউনিযুক্ত দু’কক্ষ বিশিষ্ট থাকার ঘর, রান্নাঘর, টয়লেট, টিউবওয়েল ও ইউটিলিটি স্পেসসহ প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ এই উপহার উপকারভোগীদের হাতে তুলে দেয়া হবে বলে জানানো হয়েছে৷ 

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
 কুষ্টিয়ার  বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর