মঙ্গলবার   ১৭ মে ২০২২   জ্যৈষ্ঠ ২ ১৪২৯   ১৫ শাওয়াল ১৪৪৩

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
সর্বশেষ:
চুয়াডাঙ্গায় ভুয়া ডাক্তারকে দেড় লাখ টাকা জরিমানা পেঁয়াজের উৎপাদন বেড়েছে ২ লাখ ৭৯ হাজার টন এবার হজ কার্যক্রম পরিচালনার অনুমতি পেল ৭৮০ এজেন্সি আগামী দুই বছরের মধ্যে পৃথিবী হবে ডাটানির্ভর ডিজিটালের পরবর্তী পদক্ষেপ স্মার্ট বাংলাদেশ
২৮১৮

কুষ্টিয়ায় ফার্মেসীতে চলছে অবাধে ড্রাগ বিক্রি!

নিজস্ব প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

কুষ্টিয়া ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে সন্ধ্যার পর থেকেই ট্যাপেন্টাখোরদের অবাধ চলাফেরা চলে। গত মঙ্গলবার আনুমানিক রাত ১১টার সময় এক যুবক কে অস্বাভাবিবক ভাবে চলাফেরা করতে দেখা গেলে তার কাছ থেকে ট্যাপেন্টা ও ঘুমের ওষুধ পাওয়া যায়।

এই ওষুধ কোথায় পেয়েছে জানতে চাইলে সে হাসপাতালের সামনে একটি ফার্মেসী থেকে কিনেছে বলে জানায়। কতদিন ধরে ঐ ফার্মেসী থেকে ট্যাপেন্টা কিনছে জানতে চাওয়া হলে সে বলে ২০-২৫ দিন ধরে নিয়মিত ঐ ফার্মেসী থেকে কোন ব্যবস্থাপত্র ছাড়ায় ট্যাপেন্টা ও ঘুমের ওষুধ ক্রয় করছে।

ট্যাপেন্টাখোরদের কারনে হাসপাতাল এলাকায় চুরি, ছিনতাই সহ বিভিন্ন ধরনের অপকর্ম বৃদ্ধি পেয়েছে। এইসব ট্যাপেন্টা ও ঘুমের ঔষধ গুরুতর অসুস্থ্, দুর্ঘটনায় আহত ও দুশ্চিন্তাগ্রস্থ লোকজনের ঘুমের জন্য ডাক্তারের পরামর্শে ব্যবহার করা হয়। এইসব ঔষধ ডাক্তারের ব্যবস্থাপত্র ছাড়া বিক্রি নিষিদ্ধ হলেও অতি মুনাফার আশায় বিক্রি করছে কিছু অসাধু ঔষধ ব্যবসায়ীরা। আর সুযোগ নিচ্ছে মাদকসেবীরা।

বিপথগামী স্কুল পড়ুয়া ছাত্র থেকে শুরু করে কলেজ পড়ুয়া তরুণ সমাজ আজ ধ্বংসের মুখে পতিত হচ্ছে মাদকরুপী ট্যাপেন্টা ও ঘুমের ঔষধের কারনে। প্রেসসক্রিপশন ছাড়া ফার্মেসি গুলোতে এমন অবাধ উত্তেজক ট্যাবলেট বিক্রি হওয়ায় সচেতন মহল ও অভিভাবকদের মাঝে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। ইয়াবাসেবীদের কাছে এখন এসকেএফ ওষুধ কোম্পানির ট্যাপেন্টা ট্যাবলেটের ব্যাপক চাহিদা দেখা দিয়েছে। বাজারে এ ট্যাবলেটটির দাম হু হু করে বেড়ে উঠেছে। বর্তমানে ৫০ মিলিগ্রাম একটি ট্যাবলেটের মূল্য ৫০ থেকে ৭০ টাকা এবং ১০০ মিলিগ্রাম একটি ট্যাবলেটের মূল্য ১০০ থেকে ১৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। যার কোম্পনি মূল্য ৫০ মিলিগ্রাম প্রতি ট্যাবলেটের দাম ১২ টাকা এবং ১০০ মিলিগ্রাম প্রতিটি ট্যাবলেটের দাম ২২ টাকা।

দীর্ঘদিন ধরে ইয়াবাসেবনকারীরা ইয়াবা ট্যাবলেট চোরাই পথে নিয়ে এসে নেশা হিসেবে ব্যবহার করত। কিন্তু বাজারে এর চাহিদা কয়েক গুণ বেড়ে যাওয়ায় এবং প্রশাসনের নজরদারি বেশি হওয়ায় ইয়াবা ট্যাবলেট নিয়ে আসা কঠিন হয়ে পড়েছে। ফলে সেবনকারীদের নেশার মাত্রা বেড়ে যায়। এরই সুযোগে এক ধরনের নেশায় আসক্তরা ওষুধ কোম্পানি এসকেএফ লিমিটেডের ট্যাপেন্টা ট্যাবলেটটি নেশা হিসেবে ব্যবহার শুরু করে। তারা ইয়াবার বিকল্প হিসেবে এখন এ ট্যাবলেট সেবন করছেন।

সম্প্রতি সময়ে কুষ্টিয়া পুলিশের মাদকের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থানের কারনে কুষ্টিয়া সহ পাশ্ববর্তী অঞ্চলে মাদক প্রায় নির্মূলের পথে। ফলে মাদকসেবীরা মাদকের পরিবর্তে চেতনানাশক ঔষধের দিকে ঝুকে পরেছে। কুষ্টিয়া শহর সহ গ্রামের অলিতে গলিতে ফার্মেসী গুলোতে চলছে প্রেসক্রিপশন ছাড়া ঘুমের ঔষধ বিক্রির রমরমা ব্যবসা। কিছু অসাধু ব্যবসায়ী ঔষধ বিক্রির অন্তরালে নেশাজাতীয় ট্যাপেন্টা, ইনজেকশন ও ঘুমের ট্যাবলেট বিক্রয় করছে অধিক মুনাফা লাভের আশায়।

কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের ডাঃ মেজবাউর রহমান বলেন, ট্যাপেন্টা-১০০ একটি ব্যাথা নিরোধক ঔষধ। এটি খেলে ঘুমের ভাব আসে। এটি সাধারণত অপারেশন পরবর্তি সময়ে দেওয়া হয়। এ ঔষধ সেন্টাল নার্ভাস সিষ্টেমের উপরে কাজ করে। অতিরিক্ত ব্যাবহারে ব্রেইনের মারাত্বক ক্ষতি হতে পারে।

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
 কুষ্টিয়ার  বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর