মঙ্গলবার   ১৭ মে ২০২২   জ্যৈষ্ঠ ২ ১৪২৯   ১৫ শাওয়াল ১৪৪৩

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
সর্বশেষ:
চুয়াডাঙ্গায় ভুয়া ডাক্তারকে দেড় লাখ টাকা জরিমানা পেঁয়াজের উৎপাদন বেড়েছে ২ লাখ ৭৯ হাজার টন এবার হজ কার্যক্রম পরিচালনার অনুমতি পেল ৭৮০ এজেন্সি আগামী দুই বছরের মধ্যে পৃথিবী হবে ডাটানির্ভর ডিজিটালের পরবর্তী পদক্ষেপ স্মার্ট বাংলাদেশ
১৬০৮

কুষ্টিয়ায় কীটনাশকবিহীন বেগুন চাষে কৃষকের সাফল্য

নিজস্ব প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

কুষ্টিয়ায় কীটনাশকবিহীন বেগুনের আবাদ দিন দিন বাড়ছে। বেগুন আবাদে কীটনাশক ছেড়ে চাষিরা পরিচ্ছন্ন চাষাবাদ পদ্ধতি ও সেক্স ফরমোন ফাঁদ ব্যবহারের দিকে ঝুঁকছেন। এ পদ্ধতিতে স্বাস্থ্যবান্ধব বেগুন উৎপাদনের পাশাপাশি চাষাবাদের খরচ অনেক কম এবং আয় বেশি হয় বলে জানিয়েছে কৃষক ও কৃষি বিভাগ।

কুষ্টিয়া সদর উপজেলার বটতৈল ভাদালিয়াপাড়া এলাকার কৃষক হাসেম আলী প্রায় ১ বিঘা জমিতে আবাদ করেছেন উন্নতজাতের বেগুন। তিনি আগে বেগুনের খেতের ক্ষতিকর পোকা দমনের জন্য প্রতিদিন সকাল-বিকাল কীটনাশক স্প্রে করলেও এখন কীটনাশক ছেড়ে পরিচ্ছন্ন চাষাবাদ পদ্ধতিতে বেগুন আবাদ করছেন। 

এ পদ্ধতিতে বেগুনের ক্ষেতকে সবসময় পরিচ্ছন্ন রাখতে হয়। বেগুন গাছের মরা ডগা ও পাতা তুলে তা খেতের বাইরে ফেলে দিতে হয়। পাশাপাশি পাখির আক্রমণ ঠেকাতে নেট ও পোকা দমনে ব্যবহার করা হচ্ছে সেক্স ফরমোন ফাঁদ।

কৃষক হাসেম আলী জানান, আগে পোকার আক্রমণ ঠেকাতে প্রতি সপ্তাহে বেগুন খেতে কীটনাশক ছিটাতে হতো। এতে বেগুন বিক্রির টাকার একটি অংশ ব্যয় হয়ে যেত। তবে কীটনাশক ছিটানোর পরও পোকার আক্রমণ থেকে পুরোপুরি নিস্তার মিলত না। পরে কৃষি বিভাগের পরামর্শ অনুযায়ী তিনি বেগুন খেতে পোকা মারার ফাঁদ সেক্স ফরমোন পদ্ধতি ব্যবহার শুরু করেন। পাশাপাশি তিনি বেগুন খেত সবসময় পরিচ্ছন্ন রাখেন। এতে তার বেগুন খেতে পোকার আক্রমণ এখন আর নেই বলেই চলে। এতে একদিকে যেমন তিনি খেতে উৎপাদিত সুস্থ-সবল বেগুন ভালো দামে বিক্রি করতে পারছেন, তেমনি কীটনাশক কেনার খরচ থেকে মুক্তি পেয়েছেন।

এ দিকে হাসেম আলীর দেখাদেখি এলাকার অনেক কৃষক নতুন পদ্ধতি ব্যবহার করে বেগুন চাষ করে সফলতা পাচ্ছেন। এ পদ্ধতিতে বেগুন চাষে খরচ আগের তুলনায় বিঘাপ্রতি ১০ হাজার টাকা কম লাগছে বলে জানান কৃষক। ওই এলাকার কৃষক জাফর মণ্ডল জানান, খেতে সেক্স ফরমোন পদ্ধতির ব্যবহার এবং পরিচ্ছন্ন পদ্ধতিতে বেগুন চাষ করে তারা অনেক লাভবান হচ্ছেন। এতে উৎপাদন খরচ অনেক কমে এসছে। এ পদ্ধতিতে চাষাবাদ আরও জনপ্রিয় করে তুলতে স্থানীয় কৃষি বিভাগ, কৃষকের হাতে-কলমে প্রশিক্ষণসহ নানাভাবে উৎসাহিত করছেন। 

কুষ্টিয়া সদর উপজেলার পাশাপাশি কয়েক বছরের মধ্যে পুরো জেলায় নতুন এ পদ্ধতি ছড়িয়ে দেওয়া হবে। 

কুষ্টিয়া সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সেলিম হোসেন জানান, এ উপজেলায় চলতি বছর ৩৬০ হেক্টর জমিতে বেগুন আবাদ হয়েছে। বেশিরভাগ বেগুন খেতে সেক্স ফরমোন পদ্ধতি ব্যবহার হচ্ছে। 

তিনি জানান, সবজি খেতে পোকা দমন যেসব কীটনাশক ব্যবহার হয়, তা মানবদেহের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। এ কারণে তারা কৃষকের কীটনাশক ব্যবহারে নিরুৎসাহিত করে বিষমুক্ত ও স্বাস্থ্যবান্ধন সবজি চাষে কাজ করছেন। এ বিষয়ে কৃষকের কাছ থেকে ভালো সাড়াও পাওয়া যাচ্ছে।

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
 কুষ্টিয়ার  বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর