শুক্রবার   ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩   মাঘ ২০ ১৪২৯   ১১ রজব ১৪৪৪

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
সর্বশেষ:
সুখসাগর পেঁয়াজ বীজ চাষে লাভবান হচ্ছেন মেহেরপুরের কৃষকরা দেশের প্রথম পাতাল মেট্রোরেলের নির্মাণকাজ উদ্বোধন বেসরকারি হজ প্যাকেজ ঘোষণা, সর্বনিম্ন খরচ ৬,৭২,৬১৮ টাকা সেতুমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাৎ করেছেন জাপানের রাষ্ট্রদূত ৪৮ বছর ধরে দেশে বিখ্যাত চুয়াডাঙ্গার ব্লাকবেঙ্গল গোট পেশাদারির সঙ্গে দায়িত্ব পালন করুন
১০৫

প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে ঘিরে পাল্টে যাচ্ছে কক্সবাজার

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৩০ নভেম্বর ২০২২  

আগামী ৭ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আগমনকে কেন্দ্র করে পাল্টে যাচ্ছে কক্সবাজারের দৃশ্যপট। দীর্ঘদিন ধীরগতিতে চলা উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে এখন গতি সঞ্চার হয়েছে। দ্রুতগতিতে এগিয়ে যাচ্ছে কক্সবাজার প্রধান সড়কের নির্মাণকাজ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী ৭ ডিসেম্বর

ইনানিতে আন্তর্জাতিক শক্তি মহড়া উদ্বোধন শেষে কক্সবাজার আন্তর্জাতিক শেখ কামাল স্টেডিয়ামে আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় বক্তব্য রাখবেন। এরইমধ্যে জনসভা সফল করার লক্ষ্যে সব প্রস্তুতি সম্পন্নের কাজ করছেন জেলা আওয়ামী লীগ নেতারা। একইসঙ্গে পুরো শহরে চলছে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ। প্রধান সড়কের কাজের পাশাপাশি সদ্যনির্মিত নতুন সড়ক রং করার কাজ চলছে। এছাড়া সরকারি ও বেসরকারি ভবন নতুনভাবে সাজানো হচ্ছে। ব্যানার-ফেস্টুন ও তোরণে ছেয়ে যাচ্ছে পুরো কক্সবাজার।

কক্সবাজার সিটি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অধ্যাপক আবুল হাসেম বলেন প্রধানমন্ত্রীর কক্সবাজার সফর অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এরইমধ্যে কক্সবাজারে ৭২টি মেগা প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে যার অধিকাংশই এখন সম্পন্ন হওয়ার পথে। কক্সবাজারবাসীকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেটুকু উন্নয়ন দিয়েছেন এর প্রতিদান পেতে চায় আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে। জেলার ৪টি আসনে দলের বিজয় ধরে রাখতে প্রধানমন্ত্রীর এই সফর গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে।
কক্সবাজার পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ নজিবুল ইসলাম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভায় ব্যাপক জনসমাগম ঘটাতে পৌর আওয়ামী লীগ দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর জনসভা সফল করতে এরইমধ্যে পৌরসভার ১২টি ওয়ার্ড ও সব ইউনিট পূর্ণ প্রস্তুতি নিয়েছে।
মহেশখালী-কুতুবদিয়ার সংসদ সদস্য আশেক উল্লাহ রফিক বলেন, কক্সবাজারবাসীকে প্রধানমন্ত্রী যা দিয়েছেন তা স্বাধীনতাপরবর্তী কোনো সরকার দিতে পারেনি। যেদিকে তাকাই সেদিকে শুধু উন্নয়ন। মহেশখালীতে গভীর সমুদ্রবন্দর, কক্সবাজার বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীতকরণ, রেললাইন প্রকল্পসহ বৃহৎ প্রকল্পগুলো বাস্তবায়িত হয়েছে। এরইমধ্যে লবণের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করেছেন শেখ হাসিনা। তিনি যা বলেন তা-ই বাস্তবায়ন করেন। আশা করি আগামীতে আরো উন্নয়ন হবে। কক্সবাজারের মানুষ জাতির জনকের কন্যা শেখ হাসিনাকে বিমুখ করবেন না। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে জেলার ৪টি আসন প্রধানমন্ত্রীকে উপহার দেবেন।
কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান বলেন, জনসভা সফল করতে প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন হওয়ার পথে। জনসভায় লাখ লাখ মানুষ উপস্থিত করে আমরা প্রমাণ করতে চাই আমরা কক্সবাজারবাসী আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ আছি এবং আমরা উন্নয়নের পক্ষে আছি। শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী থাকলে এলাকার উন্নয়ন হয়- এর জ্বলন্ত প্রমাণ কক্সবাজার জেলা। বিগত সময়ে বেগম খালেদা জিয়া সরকার কক্সবাজারের কোনো উন্নয়ন করেনি। যে যেভাবে পেরেছেন লুটপাট করেছেন। এর ফলে কক্সবাজার অনেক পিছিয়ে পড়েছিল। শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর থেকেই কক্সবাজারের দৃশ্যপট পাল্টে গেছে। কক্সবাজারের মানুষ আগুন সন্ত্রাসীদের আর ক্ষমতায় দেখতে চায় না।
এদিকে অভ্যন্তরীণ সড়ক যোগাযোগের ব্যবস্থার ব্যাপক উন্নয়ন হওয়ায় গাড়িচালক ও সাধারণ মানুষও সন্তুষ্ট। সিএনজি অটোচালক শহিদুল্লাহ জানান কক্সবাজার শহরের এমন কোনো সড়ক নাই যেখানে উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি। দীর্ঘদিন কক্সবাজারবাসী দুর্ভোগ পোহালেও বর্তমানে পাল্টে গেছে কক্সবাজারের চিত্র। আমরা সড়ক যোগাযোগের ব্যাপক উন্নয়ন হওয়ায় সন্তুষ্ট।
রিকশাচালক সাহেব মিয়া জানান, প্রধান সড়কের কিছু অংশের কাজ সম্পন্ন হলে আর কোনো সমস্যা থাকবে না। আমরা সড়কে গাড়ি চালাতে গিয়ে অনেক কষ্ট করেছি। যাত্রীরাও অনেক কষ্ট করেছেন। আমরা এই দুর্ভোগ থেকে এখন পরিত্রাণ পেয়েছি। এখন সড়কে আর কোনো সমস্যা নেই। তাই পাল্টে যাওয়া কক্সবাজার শহরে প্রধানমন্ত্রী আসছেন শুনে আমরা খুশি হয়েছি।

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
 কুষ্টিয়ার  বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর