মঙ্গলবার   ২৮ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ১৫ ১৪২৬   ০২ জমাদিউস সানি ১৪৪১

৫৬

সোলাইমানির জানাজায় পদদলিত হয়ে নিহত বেড়ে ৫০

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

প্রকাশিত: ৮ জানুয়ারি ২০২০  

ইরানের বিখ্যাত রেভ্যুলিউশনারি গার্ড বাহিনীর অভিজাত শাখা কুদস ফোর্সের প্রধান জেনারেল কাসেম সোলাইমানির জানাজায় পদদলিত হয়ে নিহতের সংখ্যা বেড়ে অন্তত ৫০ জনে দাঁড়িয়েছে। এছাড়া আহত হয়েছে দুইশতাধিক। আহতদের অনেকেরই অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে দেশটির কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

মঙ্গলবার তার জন্মস্থান কেরমান শহরে দাফনের আগে অনুষ্ঠিত জানাজার সময় কয়েক লাখ মানুষের উপচে পড়া ভিড়ে পদদলনের ঘটনা ঘটে।

ব্রিটিশ দৈনিক ডেইলি মেইল জানিয়েছে, কেরমানে দেশটির নায়ক খ্যাত জনপ্রিয় এই জেনারেলের জানাজায় লাখ লাখ মানুষ অংশ নেন। জানাজা শেষে কেরমানের কবরস্থানে তার মরদেহ দাফন করার কথা রয়েছে।

গত ৩ জানুয়ারি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশে মধ্যপ্রাচ্যে ইরানের প্রভাব বিস্তারের স্থপতি হিসেবে পরিচিত কুদস ফোর্সের শীর্ষ এই জেনারেলকে বাগদাদ বিমানবন্দরের কাছে ড্রোন হামলা চালিয়ে হত্যা করা হয়।

এর আগে সোমবার সকালে ইরাক থেকে যখন জেনারেল সোলাইমানির মরদেহ ইনকিলাব চত্বরে পৌঁছায় তখন লাখ লাখ মানুষের উপস্থিতিতে জনসমুদ্রে রূপ নেয় তেহরান। পরে সেখান থেকে তার মরদেহ তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ে নেয়া হয়। সেখানে দেশটির সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি নিহত এ জেনারেলের জানাজার ইমামতি করেন। জানাজা নামাজ পড়ানোর সময় তিনি কান্নায় ভেঙে পড়েন।

মঙ্গলবার সকালে ইরানের জনিপ্রয় এই জেনারেলের মরদেহ তার নিজ শহর কেরমানে নেয়া হয়। শোকাহত লাখ লাখ মানুষের উপস্থিতি জানাজা অনুষ্ঠানে বিশৃঙ্খলা তৈরি করে।

সোলাইমানির মরদেহবাহী কফিন ঘিরে লাখো মানুষের জনসমুদ্রের ছবি দেখিয়ে দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের খবরে বলা হয়, জেনারেল সোলাইমানির জানাজায় পদদলিত হয়ে কমপক্ষে ৫০ জনের প্রাণহানি এবং ২১৩ জন আহত হয়েছেন।

মার্কিন ড্রোন হামলায় সোলাইমানির মৃত্যু ঘিরে ইরানে তিনদিনের শোক পালন করা হয়। মঙ্গলবার তার জানাজা অনুষ্ঠানে ইরানের বিপ্লবী গার্ড বাহিনীর প্রধান হোসেইন সালামি যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে কঠোর প্রতিশোধ নেয়ার হুমকি দেন।

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
 কুষ্টিয়ার  বার্তা