শনিবার   ১৭ এপ্রিল ২০২১   বৈশাখ ৪ ১৪২৮   ০৫ রমজান ১৪৪২

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
সর্বশেষ:
চিরনিদ্রায় শায়িত কবরী, লাল-সবুজে ঢাকলো সমাধি ৫ দিনের রিমান্ডে হেফাজত নেতা মাওলানা জুবায়ের আহমদ হেফাজতের তাণ্ডবে বিএনপির মদদ ছিল : হানিফ সালিশ বৈঠকে ভাইস চেয়ারম্যানের চড়-থাপ্পরে বৃদ্ধের মৃত্যু
৭০

সারাদেহে ক্ষতচিহ্ন নিয়ে বাড়ি ফিরল শিশু চাঁদনী

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১১ মার্চ ২০২১  

বাসার ছোট বাচ্চাকে দেখাশোনার জন্য কুষ্টিয়ার খোকসা উপজেলার ১০ বছরের শিশু চাঁদনীকে গৃহকর্মীর কাজে ঢাকা পাঠানো হয়েছিল। ৯ মাস অবর্ণনীয় নির্যাতন ও সারা শরীরে ক্ষতচিহ্নসহ বাসায় আনা হয়েছে তাকে।

বুধবার (১০ মার্চ) দুপুরে গৃহকত্রীর নির্যাতনে অসুস্থ শিশু চাঁদনীকে হাসপাতালে ভর্তি করা করেছে পরিবার। সে উপজেলার বনগ্রাম পশ্চিম পাড়ার তমিজ উদ্দিন তোজর মেয়ে।

শিশুটির পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, করোনা শুরুর পর একই গ্রামের মাসুদুজ্জামান রান্টুর মেয়ে নেছার ঢাকার বাসায় বাচ্চাকে দেখাশোনার কাজের কথা বলে শিশু চাঁদনীকে নিয়ে যায়। এর কয়েকদিন পর থেকে শিশুটির পরিবারের সাথে গৃহকত্রী যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। পরবর্তীতে গ্রামের মানুষের চাপের মুখে ৯ মাস পর মঙ্গলবার দুপুরের গৃহকত্রী নেছার বাবার থানা সদরের বাড়ি থেকে শিশুটিকে তার নানীর কাছে বুঝে দেওয়া হয়। এ সময় শিশুটির শারীরিক অবস্থা দেখে গ্রামবাসী ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে। তারা শিশু চাঁদনীকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

এ বিষয়ে খোকসা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগের কর্তব্যরত মেডিকেল অফিসার ডাক্তার শামীম মাহমুদ জানান, পূর্ব থেকে মেয়েটির গায়ে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। অনেকটাই শারীরিকভাবে দুর্বল এবং অনেক আঘাতের চিহ্ন তার শরীরে পেয়েছি। অবস্থা বেশী খারাপ দেখেই ভর্তি করে নিয়েছি। তার চিকিৎসা চলছে।

হাসপাতালের বিছানায় বসে শিশু চাঁদনী জানায়, ঢাকার বাসায় পৌঁছানোর চার দিন পর থেকে তার উপর নির্যাতন শুরু করে গৃহকত্রী। তাকে মারধর করার পর রাতে ওড়না দিয়ে হাত-পা বেঁধে ফ্লোরে উপর করে ফেলে রাখা হতো। থালা বাসন ধোয়া, ঘরের পর্দার কাপড় কাচা, ঘর মোছার কাজ খারাপ হলেই কাঠর শাস্তি দিয়ে মারা ছিল নিত্যকার ঘটনা। এছাড়া তার শরীরে লোহার খুন্তি দিয়ে বেশ কয়েকবার ছ্যাঁকা দেওয়া হয়েছে।

শিশুটির বাবা জানান, ঝন্টু রান্টুরা অনেকটা জোর করে বাচ্চা রাখার জন্য চাঁদনীকে ঢাকায় নিয়ে যায়। মাসে মাসে মেয়ের পারিশ্রমিক হিসাবে তাকে টাকা দেওয়া কথা ছিল। কিন্তু একটা পয়সাও দেওয়া হয়নি। সে তার মেয়ের উপর নির্যাতনের বিচার দাবি করেন। 

এ ব্যাপারে নির্যাতনকারী নেছার বাবা মাসুদুজ্জামান রান্টু বলেন, কাজের মেয়ে নিয়ে এর ধরনের চক্রান্ত হয়। মঙ্গলবার তার বাসা থেকে মেয়েটিকে তার নানী নিয়ে গেছে। এ বিষয়টি তিনি ভিডিও করে রেখেছেন। শিশুটির গায়ে আগে থেকে পচঁরা রোগ ছিল। তার কিছু চিহ্ন ছিল।

এ বিষয়ে খোকসা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কমরুজ্জামান তালুকদার জানান, শিশু নির্যাতনের ঘটনা ঢাকাতে ঘটেছে। শিশুটি এখন খোকসা হাসপাতালে ভর্তি আছে। বিষয়টি আমি জেনেছি, তদন্তে অফিসার পাঠাচ্ছি। যদি কেউ অভিযোগ করেন প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
 কুষ্টিয়ার  বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর