মঙ্গলবার   ১২ নভেম্বর ২০১৯   কার্তিক ২৭ ১৪২৬   ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

সর্বশেষ:
সারাদেশে নৌযান চলাচল বন্ধ ঘোষণা ১৩ জেলা প্রশাসনের সব কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি বাতিল ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ : মোংলা-পায়রা বন্দরে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত ফুটবল নিয়ে ব্যস্ত সাকিব আল হাসান ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’র কারণে আজ জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা স্থগিত শ্রমিকলীগের সম্মেলন উদ্বোধন করলেন শেখ হাসিনা
২৫

শিশুকে অ্যান্টিবায়োটিক খাইয়ে বিপদ ডেকে আনছেন না তো?

স্বাস্থ্য ডেস্ক

প্রকাশিত: ৫ নভেম্বর ২০১৯  

বড়দের থেকে শিশুরা একটু বেশি অসুস্থ হয়। তাই শিশুদের প্রতি নিতে হয় বেশি যত্ন। কিন্তু অসুস্থতা যখন অতিরিক্ত হয়ে যায় তখনই চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হয়।
দ্রুত সুস্থতার জন্য শিশুদের অ্যান্টিবায়োটিক দেয়া হয়। কিন্তু এই অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়ানোর আগে দ্বিতীয়বার চিন্তা করে দেখতে বলেছেন বিশেষজ্ঞরা। কারণ সাধারণত যে অ্যান্টিবায়োটিক শিশুদের খাওয়ানো হয়, তা অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়ার পরিবর্তন ঘটায়। পরবর্তীতে এই ব্যাকটেরিয়াগুলো সংক্রমক রোগ, অ্যালার্জি এবং অন্যান্য রোগের কারণ হতে পারে। এমনকি স্থূলতার মতো সমস্যাও বয়ে আনতে পারে শিশুর জীবনে। ইউনিভার্সিটি অব মিনেসোটা এর এক দল গবেষক তাদের গবেষণায় এ তথ্য জানান।

প্রধান গবেষক ড্যান নাইটস বলেন, বিগত বহু বছরের নানা তথ্য-উপাত্ত নিয়ে আমরা ব্যাপক গবেষণা চালিয়েছি। অ্যান্টিবায়োটিকের সঙ্গে শিশুর অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়ার একটি শক্তিশালী সম্পর্ক স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। বড় হওয়ার পর এর বিরূপ প্রভাবের প্রমাণও পাওয়া গেছে।

গবেষণায় বলা হয়, বিভিন্ন রোগের ক্ষেত্রে শিশুদের অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়ানো সাধারণ একটি ঘটনা। এদে তাদের দীর্ঘমেয়াদী সমস্যায় পড়তে হয়। সাম্প্রতিক এই গবেষণায় অ্যান্টিবায়োটিক দেহে কীভাবে কাজ করে তার একটি মানচিত্র তৈরি করা হয়েছে। পরবর্তীতে এর প্রভাবও বিশ্লেষণ করা হয়।

দেখা গেছে, অ্যান্টিবায়োটিক অন্ত্রের মাইক্রোবায়োটাতে পরিবর্তন ঘটায়। এতে শর্ট-টেইন ফ্যাটি এসিডের পরিমাণ বেড়ে যায় যা বিপাকক্রিয়ায় বিরূপ প্রভাব ফেলে।

এ গবেষণার ফলে শিশুদের অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়ানোর বিষয়ে নতুন করে ভাবনা আসতে পারে। শিশুস্বাস্থ্যের জন্যে ওষুধ প্রয়োগের ভবিষ্যত চিত্রটাও পাল্টে যেতে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
 কুষ্টিয়ার  বার্তা