রোববার   ২৩ জুন ২০২৪   আষাঢ় ৯ ১৪৩১   ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
সর্বশেষ:
অ্যান্টিভেনমের ঘাটতি না রাখতে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর নির্দেশ ভাঙ্গা-যশোর রেল লাইন: চার জেলার যোগাযোগে নতুন দিগন্ত সরকারকে ১২৫ কোটি ডলার দিচ্ছে উন্নয়ন সহযোগীরা বাংলাদেশে চালু হবে রু-পে কার্ড, ভারতে টাকা-পে সেনাপ্রধানের দায়িত্ব নিলেন ওয়াকার-উজ-জামান ঈদযাত্রা: পদ্মাসেতুতে ১৩ দিনে টোল আদায় ৪২ কোটি টাকা খালেদা জিয়ার হৃদযন্ত্রে পেস মেকার বসানোর কাজ চলছে: আইনমন্ত্রী পুলিশের এক অতিরিক্ত আইজিপি ও ৯ ডিআইজিকে বদলি-পদায়ন
১৩৮

ভেড়ামারায় ১০ হেক্টর জমিতে উন্নত জাতের বরই চাষ

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪  

সুস্বাদু ফল হিসেবে অনেকেই বরই পছন্দ করেন। কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলায় টক-মিষ্টি সব ধরনের বরই চাষ হয়। বরইয়ের বাজারদর ও ফলন ভালো হওয়ায় দিন দিন উপজেলায় এর আবাদ বাড়ছে।

উপজেলায় কয়েকটি বরই বাগানে গিয়ে দেখা যায়, চার থেকে পাঁচ ফুট উচ্চতার এক-একটি গাছে থোকায় থোকায় ধরেছে বরই। চাষিরা বাগান থেকে বরই ছিঁড়ে ঝুড়িতে রাখছেন। বিক্রির জন্য ভেড়ামারা বাজারে নিচ্ছেন এসব বরই।

জুনিয়াদহ ইউপির পরানখালী গ্রামের কুলচাষি জমির উদ্দীন জানান, তিনি ১০ বছর ধরে বরই চাষ করছেন। আপেল জাতের বরই বাগান করে অনেক লাভবান হয়েছেন। তিনি এখন বল সুন্দরী নামের নতুন জাতের বরই চাষ শুরু করেছেন। এক বছর আগে লাগানো প্রতিটি গাছে ২০ কেজি করে বরই এসেছে।  

গোলাপ নগর গ্রামের বরই চাষি আসাদুল ইসলাম জানান, বরইগাছ লাগানোর সাত মাস পর থেকে গাছে ফুল আসে। গত বছর ৩৫ শতাংশ জমিতে ৩০০ গাছ লাগান। ৬০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। বরই বিক্রি হয় এক লাখ টাকা। খরচ বাদে ৪০ হাজার টাকা লাভ হয়। এবারো দুই পাখি জমিতে বরই আবাদ করছেন। তার বাগানে ভালো বরই এসেছে। বিক্রি শুরু করেছেন। এ বছর লাভের আশা করছেন তিনি।

উপজেলা চন্ডিপুর গ্রামের চাষি শাহাবুদ্দিন জানান, বরই চাষ অত্যন্ত লাভজনক। স্বল্প পরিসরে ও স্বল্প খরচে অনেক লাভ করা সম্ভব। তাছাড়া এ জাতের বরই পোকা মাকড়ের আক্রমণ নেই তাই কোনো প্রকার কীটনাশকের ব্যবহারও হয় না। এতে স্বাস্থ্য ঝুঁকিও নেই। তিনি এ বছর আপেলবরই ও বল সুন্দরী জাতের বরই চাষ করেছেন।

উপজেলায় শিক্ষিত ও বেকার যুবকরা চাকরির আশা না করে বা বিদেশ না গিয়ে ঝুঁকে পড়েছেন বরই চাষে। এতে পরিশ্রম কম আর লাভ বেশি। অনেকেই আবার সাথি ফসল হিসেবে বরইয়ের সঙ্গে অন্যান্য ফসল আবাদ করছেন। আবার অনেকেই আসছেন বরই চাষের পরামর্শ নিতে। কৃষি অফিসও দিচ্ছে প্রয়োজনীয় পরামর্শ।

ভেড়ামারা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাহমুদা সুলতানা বলেন, এই উপজেলা ধীরে ধীরে বাণিজ্যিক কৃষির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। তারই ধারাবাহিকতায় বিভিন্ন ধরনের বরই, আম ও পেয়ারা বাগান হচ্ছে। উপজেলায় এ বছর প্রায় ১০ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন উন্নত জাতের বরই চাষ হয়েছে। কাশ্মীরি বরই, ভারত সুন্দরী বরই, আপেল বরই, বাও বরইসহ আরো কয়েক জাতের বরই চাষ হচ্ছে। এসব বরই চাষের মাধ্যমে বাণিজ্যিক কৃষির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে এ উপজেলা। 

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
 কুষ্টিয়ার  বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর