মঙ্গলবার   ২৮ জুন ২০২২   আষাঢ় ১৩ ১৪২৯   ২৭ জ্বিলকদ ১৪৪৩

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
সর্বশেষ:
কুষ্টিয়ায় বেড়েছে পাটের চাষ ৫ ঘণ্টায় মেহেরপুরের সবজি কাওয়ানবাজারে জনগণের ভাগ্য বদলই একমাত্র লক্ষ্য : প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুতে চলছে সেনাবাহিনীর টহল কোরবানি উপলক্ষে প্রস্তুত মেহেরপুরের খামারিরা ছুটি শুরুর দু’দিন আগেই হল ত্যাগের নির্দেশ
২৪১

বাদাম চাষে ব্যাপক সাফল্য, ফসল সংগ্রহে ব্যস্ত ভেড়ামারার চাষিরা

প্রকাশিত: ১ জানুয়ারি ২০২২  

কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় বাদাম চাষে ব্যাপক সাফল্য পেয়েছেন চাষীরা। পদ্মার বিস্তীর্ণ চরে চিনা বাদাম ঘরে তুলতে ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা। 

বাজারে বাদামের বেশ চাহিদা রয়েছে। রয়েছে ভালো দামও। অর্থকরী এ ফসল চাষ করে সংসারের স্বচ্ছলতাও ফিরেছে চরবাসীর।

চলতি মৌসুমে কুষ্টিয়া জেলায় প্রায় একহাজার হেক্টর জমিতে বাদামের চাষ হয়েছে। এরমধ্যে ভেড়ামারায় বিস্তীর্ণ চরে চাষ হয়েছে ৪৮০ হেক্টর জমিতে। 

একসময় পদ্মা নদীতে জেগে ওঠা বালুচর পড়ে থাকতো। যা চাষীদের কোন কাজেই আসতো না। এখন জেগে ওঠা পদ্মার চরে চাষীরা চিনা বাদাম চাষ করে ব্যাপক সাফল্য পাওয়ায় এ অর্থকরী ফসলের চাষ পুরো চরে ছড়িয়ে পড়েছে।

এ বছরও চরে বাদাম চাষ করে চাষীরা সাফল্য পেয়েছে। খরচ বাদ দিয়ে চাষীদের লাভও হচ্ছে। বিঘা প্রতি খরচ হয়েছে মাত্র ৫-৬ হাজার টাকা। প্রতি বিঘায় বাদাম হয়েছে ৫-৭ মন হারে। আর বিক্রয় হচ্ছে ২০০০ টাকা থেকে ২২০০টাকা মন দরে। 

তবে হঠাৎ করে পদ্মা নদীতে পানি বৃদ্ধির ফলে অনেক চাষীর বাদাম পানিতে ভেষে যাওয়ায় ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে তারা।

চাষিরা বলছেন, এবছর চরে বিঘা প্রতি ৫হাজার টাকা খরচ করে প্রতি বিঘা জমিতে গড়ে ৬মন হারে বাদাম পাওয়া যাচ্ছে। যার বাজারমূল্য প্রায় ১২-১৪ হাজার টাকা। অর্থাৎ দ্বিগুণেরও বেশি মুনাফা পাওয়া সম্ভব হচ্ছে।

বাদাম চাষে চাষীদের প্রশিক্ষণ ও সরকারী প্রনোদনার পাশাপাশি চরাঞ্চলের বাদাম চাষীদের বাদাম চাষে সার্বিক সহযোগিতার কথা জানিয়েছেন ভেড়ামারা কৃষি কর্মকর্তা মো.শায়খুল ইসলাম।

চরাঞ্চলের যেসব জমি অনাবাদি পড়ে থাকে সেসব জমি অর্থকরী সোনালী ফসল বাদাম চাষের আওতায় আনা গেলে চরবাসীর সারাবছরের আর্থিক চাহিদা পুরণ হবে, পাশাপাশি দেশের বাদামের চাহিদা মিটবে। আর এমনটাই মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
 কুষ্টিয়ার  বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর