রোববার   ২৩ জুন ২০২৪   আষাঢ় ৯ ১৪৩১   ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
সর্বশেষ:
অ্যান্টিভেনমের ঘাটতি না রাখতে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর নির্দেশ ভাঙ্গা-যশোর রেল লাইন: চার জেলার যোগাযোগে নতুন দিগন্ত সরকারকে ১২৫ কোটি ডলার দিচ্ছে উন্নয়ন সহযোগীরা বাংলাদেশে চালু হবে রু-পে কার্ড, ভারতে টাকা-পে সেনাপ্রধানের দায়িত্ব নিলেন ওয়াকার-উজ-জামান ঈদযাত্রা: পদ্মাসেতুতে ১৩ দিনে টোল আদায় ৪২ কোটি টাকা খালেদা জিয়ার হৃদযন্ত্রে পেস মেকার বসানোর কাজ চলছে: আইনমন্ত্রী পুলিশের এক অতিরিক্ত আইজিপি ও ৯ ডিআইজিকে বদলি-পদায়ন
২৭

পশুর মধ্যে ১৩ রকমের ত্রুটি থাকলে কোরবানি হবে না

ধর্ম ডেস্ক

প্রকাশিত: ১০ জুন ২০২৪  

কোরবানির দিনগুলোতে সামর্থ্যবানদের জন্য কোরবানি করা ওয়াজিব। পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘আপনি আপনার রবের জন্য সালাত আদায় করুন এবং কোরবানি করুন’। (সুরা কাউসার, আয়াত, ২)

আল্লাহ তায়ালা অন্য আয়াতে বলেন— “আমি প্রত্যেক উম্মতের জন্যে কোরবানি নির্ধারণ করেছি, যাতে তারা আল্লাহর দেওয়া চতুষ্পদ জন্তু জবেহ কারার সময় আল্লাহর নাম উচ্চারণ করে। অতএব তোমাদের আল্লাহ তো একমাত্র আল্লাহ সুতরাং তারই আজ্ঞাধীন থাকো এবং বিনয়ীগণকে সুসংবাদ দাও।” (সুরা হজ:৩৪)

কোরবানির পশু মোটাতাজা ও দোষ-ত্রুটি মুক্ত হওয়া উত্তম। রাসুল (সা.) স্বাস্থ্যবান পশু দিয়ে কোরবানি করতেন। আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী করিম (সা.) যখন কোরবানি করতে চাইতেন তখন তিনি দুটি বড় মোটাতাজা, শিংওয়ালা, সুন্দর রঙের খাসিকৃত ভেড়া ক্রয় করতেন। (ইবনে মাজাহ ৩১১৩)

কোরবানির পশুর মধ্যে দোষ-ত্রুটি থাকলে কোরবানি দেওয়া যাবে না। নিম্নে তা বর্ণনা করা হলো - 

১. দৃষ্টিশক্তি না থাকা।  যে পশুর দুই চোখ বা এক চোখ পুরোপুরি অন্ধ, অথবা এক তৃতীয়াংশের বেশি নষ্ট হয়েছে এমন পশু দিয়ে কোরবানি করা যাবে না।

২. শ্রবণশক্তি না থাকা।

৩. অত্যন্ত দুর্বল ও জীর্ণ-শীর্ণ হওয়া। কোরবানির পশুর হাড়ের মগজ শুকিয়ে গেলে তা দিয়ে কোরবানির করা যাবে না। আর হাড়ের মগজ না শুকালে কোরবানি করা যাবে।

৪. এই পরিমাণ ল্যাংড়া যে জবাইয়ের স্থান পর্যন্ত হেঁটে যেতে পারে না। যে পশু এমন খোঁড়া যে তিন পায়ের ওপর ভর করে চলাচল করে, চতুর্থ পা মাটি স্পর্শ করে না কিংবা স্পর্শ করলেও তাতে ভর দিতে পারে না এমন পশু দিয়ে কোরবানি করা যাবে না। তবে জবাইয়ের সময় মাটিতে শোয়াতে গিয়ে পশুর পা ভেঙ্গে গেলে ওই পশু দিয়ে কোরবানি করা যাবে।

৫. লেজের বেশিরভাগ অংশ কাটা। 

৬. জন্মগতভাবে কান না থাকা। 

৭. কানের বেশির ভাগ কাটা। পশুর কানের এক-তৃতীয়াংশের বেশি কাটা থাকলে, তা দিয়ে কোরবানি করা যাবে না।

৮. গোড়াসহ শিং উপড়ে যাওয়া। 

৯. পাগল হওয়ার কারণে ঘাস-পানি ঠিকমতো না খাওয়া। 

১০. বেশির ভাগ দাঁত না থাকা। 

১১. রোগের কারণে স্তনের দুধ শুকিয়ে যাওয়া। 

১২. ছাগলের দুটি দুধের যেকোনো একটি কাটা।

১৩. গরু বা মহিষের চারটি দুধের যেকোনো দুটি কাটা।

মোট কথা, কোরবানির পশু বড় ধরনের দোষত্রুটি থেকে মুক্ত হবে।

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
 কুষ্টিয়ার  বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর