শুক্রবার   ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩   মাঘ ২০ ১৪২৯   ১১ রজব ১৪৪৪

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
সর্বশেষ:
সুখসাগর পেঁয়াজ বীজ চাষে লাভবান হচ্ছেন মেহেরপুরের কৃষকরা দেশের প্রথম পাতাল মেট্রোরেলের নির্মাণকাজ উদ্বোধন বেসরকারি হজ প্যাকেজ ঘোষণা, সর্বনিম্ন খরচ ৬,৭২,৬১৮ টাকা সেতুমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাৎ করেছেন জাপানের রাষ্ট্রদূত ৪৮ বছর ধরে দেশে বিখ্যাত চুয়াডাঙ্গার ব্লাকবেঙ্গল গোট পেশাদারির সঙ্গে দায়িত্ব পালন করুন
২৩

তিমি ট্রাজেডি! বিশ্বে বেঁচে আছে মাত্র ৩৫০টি

প্রকাশিত: ২৪ জানুয়ারি ২০২৩  

সমুদ্র মানে-উত্তাল ঢেউ। অতল পানি-আর ঢেউ মিলিয়েই মাছেদের ঘর। কিন্তু সেখানে জাহাজের আনাগোনা, মৎস্যজীবীদের নানা রকম ফাঁদ। সব মিলিয়ে শিকারিদের হানা— এ সবেই ধীরে ধীরে বিপন্ন হয়ে উঠেছে ‘নর্থ অ্যাটলান্টিক রাইট হোয়েল’। আমেরিকা এবং কানাডার সমুদ্র উপকূল ঘেঁষে নয় মাসে ছয় মাসে এই প্রজাতির দুই একটি তিমিকে দেখা গেলেও বিশেষজ্ঞদের দাবি, এই মুহূর্তে মোটে ৩৫০টিই বেঁচে রয়েছে।

৩৫০-এর মধ্যে প্রজননক্ষম মোটে ১০০টি তিমি। এবং দূষণ-সহ নানা কারণে এই প্রজাতির তিমিদের প্রসবের পর অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার ব্যবধান বাড়তে থাকায় তাদের অস্তিত্ব আরও সঙ্কটে পড়েছে। সম্প্রতি ‘নর্থ অ্যাটলান্টিক রাইট হোয়েল’ প্রজাতির একটি ৪ বছরের তিমি মৃত্যুমুখে পড়েছে বলে জানিয়েছে ন্যাশনাল ওশেনিক অ্যান্ড অ্যাটমস্ফেরিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এনওএএ)। তা নিয়ে আরও চিন্তায় পড়েছেন এনওএএ বিশেষজ্ঞরা। তাদের দাবি, তিমির বিরল প্রজাতিগুলির মধ্যে ঐ ৪ বছরের ছানাটির শীঘ্রই মৃত্যু হবে।

‘নর্থ অ্যাটলান্টিক রাইট হোয়েল’ প্রজাতির সংখ্যা ক্রমশ কমছে বলে জানিয়েছে এনওএএ। মূলত জাহাজের যাতায়াতের জেরে তিমিদের প্রাণ ওষ্ঠাগত। সেই সঙ্গে মৎস্যজীবীদের ছোড়া জালের ফাঁদে ফেঁসে যাচ্ছে তিমি। এমনই একটি দড়ির ফাঁদে আটকে পড়েছিল ওই তিমির ছানাটি।

এনওএএ-এর মৎস্য বিভাগ জানিয়েছে, স্ত্রীলিঙ্গের ঐ তিমিশাবকটিকে নর্থ ক্যারোলাইনার রোদান্তে উপকূলের ৩২ কিলোমিটার পূর্বদিকে দেখা গিয়েছে। তাদের দাবি, দড়ির ফাঁদে তিমিশাবকটি এমন ভাবে জড়িয়ে পড়েছে, সম্ভবত মৃত্যুই হবে সেটির। সম্প্রতি ওই তিমিশাবকটিকে দেখতে পায় ফ্লরিডার স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ‘ক্লিয়ারওয়াটার মেরিন অ্যাকোয়ারিয়াম’-এক সমীক্ষক দল। সাধারণত সামুদ্রিক প্রাণীদের উদ্ধার, পুনর্বাসনের কাজে জড়িত সংস্থাটি।

সমীক্ষকেরা জানিয়েছেন, ৮ জানুয়ারি আকাশপথে সমীক্ষা চালাতে গিয়ে দেখা যায়, তিমিশাবকটির লেজে, মুখে অসংখ্য দড়ি জড়িয়ে গিয়েছে। যার জেরে সেটির গোটা দেহ জুড়ে অজস্র ক্ষত তৈরি হয়েছে। ওই ক্ষতগুলিতে অসংখ্য ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র পরজীবী বা ‘তিমিউকুন’ও বাসা বেঁধেছে। এর জেরে তিমিটির হাল আরও সঙ্গিন হয়ে উঠেছে।

কীভাবে জানা গেল ওই তিমিশাবকটিই ‘নর্থ অ্যাটলান্টিক রাইট হোয়েল’ প্রজাতির? আমেরিকার সংবাদমাধ্যম ‘সিএনএন’ জানিয়েছে, এই প্রজাতির তিমিকে সমুদ্রের জলে কখন দেখা গিয়েছে, তার দিন ক্ষণ, ইতিহাস নথিবদ্ধ করছে ‘নিউ ইংল্যান্ড অ্যাকোয়ারিয়াম’ নামে এক সংস্থা। এমনকি, এক-একটি সংখ্যার মাধ্যমে ওই তিমিগুলোর চিহ্নিতকরণের কাজ করেছেন তারা। ‘নিউ ইংল্যান্ড অ্যাকোয়ারিয়াম’-এর বিজ্ঞানীরা যেমন ঐ তিমিশাবকটিকে ৪৯০৪ নম্বর দিয়ে চিহ্নিত করেন। তাঁরা জানিয়েছেন, ৪৯০৪ নম্বর তিমিশাবকটি আসলে ‘স্পিন্ডল’ (১২০৪ নম্বর) নামে একটি পূর্ণবয়স্ক তিমির সন্তান।

সম্প্রতি জর্জিয়ার সেন্ট ক্যাথেরিনস দ্বীপে স্পিন্ডলকে তার অন্য একটি সন্তান-সহ দেখা গেছে। তবে গত বছরের মে মাসে ম্যাসাচুসেট্‌স উপকূলে ৪৯০৪ নম্বরের ঐ ৪ বছরের তিমিশাবকটিকে দেখা গিয়েছিল বলে জানিয়েছিল ‘নিউ ইংল্যান্ড অ্যাকোয়ারিয়াম’। চলতি মাসে ৪৯০৪ নম্বরের তিমিশাবকটিকে ক্ষতবিক্ষত অবস্থায় দেখতে পান ‘ক্লিয়ারওয়াটার মেরিন অ্যাকোয়ারিয়াম’-এক সমীক্ষকেরা। তবে সেটির উদ্ধারে কোনও দলের সাহায্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

একটি বিবৃতিতে এনওএএ-এর বিজ্ঞানীরা বলেছেন, ‘বেলা গড়িয়ে যাওয়ায় ওই তিমিশাবকটিকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। তবে পরিবেশ অনুকূল হলে সংশ্লিষ্ট আধিকারিকদের সঙ্গে মিলে সেটিকে অবস্থা জানার চেষ্টা করবে এনওএএ-এর মৎস্য বিভাগ। ঐ দড়ির ফাঁস ছাড়ানো সম্ভব কিনা, তারও চেষ্টা করা হবে। ঐ ক্ষতগুলোর জেরে হয়তো মৃত্যু হতে পারে তিমিশাবকটির।’

‘নর্থ অ্যাটলান্টিক রাইট হোয়েল’ প্রজাতির মধ্যে সম্প্রতি মৃত্যুহার বাড়ছে বলেও চিন্তায় পড়েছেন পরিবেশবিদ এবং বিজ্ঞানীরা। ২০১৭ সালে এনওএএ-এর মৎস্য বিভাগ জানিয়েছিল, আমেরিকা এবং কানাডা ঘেঁষে উত্তর অতলান্তিকে এই প্রজাতির তিমিদের মৃত্যু ও জখমের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। এর পেছনে যে মৎস্যজীবীদের ফাঁদ এবং জাহাজ থেকে তিমির উপর হামলাই অনেকাংশে দায়ী, তা মনে করছেন বিজ্ঞানীরা।

এই প্রজাতির আরো একটি তিমির সম্ভাব্য মৃত্যুর দিকে এগোচ্ছে। একে অত্যন্ত দুঃসংবাদ বলে মনে করছে এনওএএ। তারা জানিয়েছে, ১০ বছর বয়সের পর প্রজননক্ষম হয় এই প্রজাতির তিমি। তবে এক বার প্রসবের পর দ্বিতীয় বার অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার মাঝে সাধারণত ৩ বছরের ব্যবধান থাকে। যদিও আজকাল তা বেড়ে ৬-১০ বছরে দাঁড়িয়েছে।

এনওএএ-এর দাবি, জাহাজের যাতায়াতের কারণে শব্দদূষণ, মানসিক কারণের পাশাপাশি খাবারের অভাবেও প্রজননে বাধা পাচ্ছে তিমিরা। শব্দদূষণের জেরে নিজেদের বাসস্থানের পথ খুঁজে পেতে অসুবিধা হয় তিমিদের। এমনকি, এতে খাবারদাবার খুঁজে পাওয়া বা সঙ্গী চিহ্নিত করার ক্ষেত্রেও সমস্যায় পড়ে তারা।

এনওএএ-এর মতে, এই মুহূর্তে প্রজননক্ষম ‘নর্থ অ্যাটলান্টিক রাইট হোয়েল’ হয়েছে মোটে ১০০টি। তাদের সংখ্যা বাড়াতে বছরে ৫০টি বা তার বেশি সন্তানের জন্ম দিতে হবে তিমিদের। তবে ২০১৭ সাল থেকে মোটে ৫৭টি এই প্রজাতির তিমি জন্মেছে। তার মধ্যে মাত্র ১৫টি তিমিশাবকের দেখা পাওয়া গিয়েছে ২০২১-’২২ মৌসুমে।

১৯৩৫ সালেই উত্তর অতলান্তিকে বাণিজ্যিক কারণে তিমিশিকারে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। তবে তার আগে থেকে এদের সংখ্যা কমছিল। যে পরিস্থিতির এখনও হেরফের হয়নি বলে দাবি এনওএএ-এর।

সূত্র: আনন্দবাজার

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
 কুষ্টিয়ার  বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর