মঙ্গলবার   ১০ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২৫ ১৪২৬   ১১ রবিউস সানি ১৪৪১

জীবননগরের সন্তোষপুর-আন্দুলবাড়ীয়া সড়কের অবস্থা চরম নাজুক

নিজস্ব প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২১ নভেম্বর ২০১৯  

চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার সন্তোষপুর-আন্দুলবাড়ীয়া সড়কটি ভেঙে-চুরে অসংখ্য গর্ত আর খানাখন্দ সৃষ্টি হওয়ায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে যানবাহন ও পথচারীদের। ব্যস্ততম এ সড়কটি দীর্ঘ দিন ধরে সংস্কার না হওয়ায় যাতায়াতকারীদের ভোগান্তির যেন শেষ নেই।

সরজমিন দেখা গেছে, জীবননগর উপজেলার সন্তোষপুর-আন্দুবাড়ীয়া সড়কটি একটি ব্যস্ততম সড়ক। উপজেলার একমাত্র ভারী শিল্প কনটেক মিল এ সড়কের পাশেই অবস্থিত। এ মিলে উৎপাদিত বৈদ্যুতিক খুঁটি ১০ চাকা ও ১৬ চাকার ট্রাকের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সরবরাহ করা হয়। অন্যদিকে এ সড়কের দুই ধারে গড়ে উঠেছে ছয়-সাতটি ইটভাটা। অন্যদিকে আন্দুলবাড়ীয়া বাজার একটি ঐতিহ্যবাহী বাজার। এ বাজার থেকে প্রতিদিন ১০-১৫ ট্রাক সবজি এবং মওসুমে ২৫-৩০ ট্রাক ভুট্টা দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাঠানো হয়। আন্দুলবাড়ীয়া বাজার থেকে প্রতিদিন বেশ কয়েকটি ঢাকাগামী পরিবহনের যাতায়াত রয়েছে। সড়কটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ায় আন্দুলবাড়ীয়া বাজারের অদূরে শাহাপুর পুলিশ ক্যাম্পের সদস্যদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রাতে ডিউটি করতে হয়। প্রতিদিন কয়েক শ’ হালকা ও ভারী যানবাহন চলাচলের কারণে সড়কটি ভেঙেচুরে একাকার হয়ে গেছে। আর এসব গর্তের কারণে প্রায় প্রতিদিনই ছোট খাটো দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে এলাকাবাসী।

সন্তোষপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে আন্দুলবাড়ীয়া ভায়া বাজদিয়া আট কিলোমিটার সড়কের বেশির ভাগ স্থানের কার্পেটিং, ইট, পিচ উঠে গিয়ে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা ও পাশের ঝিনাইদহের কাছাকাছি অবস্থান করায় এ সড়ক দিয়ে প্রতিদিন শত শত যানবাহন চলাচল করে। এ সড়কটি অনেকের কাছে নিরাপদও বটে। ছোট-বড় অসংখ্য গর্তের কারণে বর্ষাকালে যানবাহন ও পথচারীদের চলাচলে মারাত্মক বিঘœ ঘটে। ফলে বর্ষাকালে অনেকটা ঝুঁকি নিয়েই যানবাহনকে চলাচল করতে হয়।

এ সড়ক দিয়ে নিয়মিত চলাচলকারী একাধিক ব্যক্তির সাথে কথা বলে জানা যায়, কোনো অসুস্থ ব্যক্তি কিংবা গর্ভবতী মায়েদের অ্যাম্বুলেন্স কিংবা অন্য কোনো পরিবহনে নেয়ার সময় শঙ্কার মধ্যে থাকতে হয়।

এদিকে আন্দুলবাড়ীয়া-সন্তোষপুর মহাসড়কের সংযোগ সড়ক অনন্তপুর-বাজদিয়া-শাহাপুর সড়কের অবস্থাও নাজুক। এসব সড়ক সংস্কারের অভাবে যান চলাচল ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। সড়কের অবস্থা নাজুক হওয়ায় শাহাপুর ক্যাম্পের পুলিশ এবং থানা পুলিশ এলাকায় বড় ধরনের কোনো অপরাধ ঘটলে যানবাহন নিয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছাতে পারে না।

এ ব্যাপারে জীবননগর উপজেলা প্রকৌশলী সাইফুল ইসলাম বলেন, উপজেলার বেশ কয়েকটি সড়কের সংস্কারসহ সম্প্রসারণের কাজ চলমান রয়েছে। আন্দুলবাড়ীয়া-সন্তোষপুর সড়কটি একটি জনগুরুত্বপূর্ণ সড়ক। এ সড়কের সংস্কার কাজের জন্য ইতোমধ্যেই বরাদ্দ পাওয়া গেছে এবং ঠিকাদারও নিয়োগ করা হয়েছে। শিগগিরই সড়কের কাজ শুরু হবে।

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
 কুষ্টিয়ার  বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর