রোববার   ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২   আশ্বিন ৯ ১৪২৯   ২৮ সফর ১৪৪৪

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
সর্বশেষ:
দেশে ১৩ কোটি ইন্টারনেট ব্যবহারকারী: আইসিটি প্রতিমন্ত্রী অতিরিক্ত ভাড়া আদায় ঠেকাতে রাজধানীতে বাসে ই-টিকিট চালু স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা মানা হয়নি অনেক মণ্ডপে চার বিভাগে ভারি বর্ষণ, আরো ৪ দিন বৃষ্টি
২১

চট্টগ্রাম বন্দরে লক্ষাধিক টন গম নিয়ে দুই জাহাজ

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২  

১ লাখ ৪ হাজার ৯৯৩ মেট্রিক টন গম নিয়ে দুটি জাহাজ চট্টগ্রাম বন্দরে পৌঁছেছে। এর মধ্যে একটি জাহাজ থেকে গম খালাস শুরু হয়েছে। বুধবার দুপুর পর্যন্ত চট্টগ্রাম সাইলোতে ২ হাজার ১৬২ মেট্রিক টন গম খালাস হয়েছে। অন্য জাহাজ থেকে নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষার প্রতিবেদন পাওয়ার পর খালাস শুরু হবে। তবে সাগরে বৈরী আবহাওয়া থাকায় নমুনা সংগ্রহ করতে চট্টগ্রাম খাদ্য বিভাগের কর্মকর্তারা ওই জাহাজে যেতে পারছেন না। এদিকে, সরকারিভাবে বিপুল পরিমাণ গম আমদানির খবরে গমের বাজার এখন নিম্নমুখী হয়েছে।

চট্টগ্রাম খাদ্য বিভাগ সূত্র জানায়, দেশে সংকট কাটাতে ও দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে সরকার গম আমদানির সিদ্ধান্ত নেয়। ১৭ সেপ্টেম্বর বুলগেরিয়া থেকে ‘এমভি এসিলিয়েস এস’ নামে একটি জাহাজ ৫২ হাজার ৫০০ মেট্রিক টন গম নিয়ে চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙ্গরে পৌঁছে। এ গম সরবরাহ করেছে ভারতের ‘এগ্রো কর্পস ইন্টারন্যাশনাল প্রাইভেট লিমিটেড’ নামে একটি প্রতিষ্ঠান। এর শিপিং এজেন্ট হিসাবে রয়েছে ‘সেভেন সী’স শিপিং লাইন।

সাইলো সূত্র জানায়, খাদ্য অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, জেলা প্রশাসকের একজন প্রতিনিধি ও আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রকসহ কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে জাহাজ থেকে গমে নমুনা সংগ্রহ করে ল্যাব পরীক্ষা করা হয়। নমুনা পরীক্ষায় গম খাবার উপযোগী উল্লেখ করে প্রতিবেদন দাখিলের পর খালাস প্রক্রিয়া শুরু হয়। বাকি ২১ হাজার মেট্রিক টন গম মোংলা বন্দরে খালাস হবে। অন্যদিকে ‘এমভি লিয়া’ নামে ৫২ হাজার ৪৯৩ মেট্রিক গমভর্তি জাহাজটি মঙ্গলবার চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙ্গরে পৌঁছে। এ গম সরবরাহ করেছে ‘মেসার্স ইন্ট্রা বিজনেস প্রাইভেট লিমিটেড’ নামে একটি প্রতিষ্ঠান। এর শিপিং এজেন্ট হিসাবে রয়েছে ‘সেভেন সী’স শিপিং লাইন।

খাদ্য বিভাগের কর্মকর্তারা জানান, ‘এমভি লিয়া’ জাহাজটি কুতুবদিয়ায় চ্যানেলে অবস্থান করছে। সাগরে ৩ নম্বর সংকেত বলবৎ থাকায় জাহাজ থেকে গমের নমুনা সংগ্রহ করা যায়নি। আবহাওয়া স্বাভাবিক হলে নমুনা সংগ্রহ করা হবে। চট্টগ্রাম চলাচল ও সংরক্ষণ কার্যালয়ের উপনিয়ন্ত্রক সুনীল দত্ত যুগান্তরকে জানান, একটি জাহাজ থেকে গম খালাস শুরু হয়েছে। সাগরে বৈরী আবহাওয়া থাকায় অপর জাহাজ থেকে গমের নমুনা সংগ্রহ করা যায়নি। নমুনা সংগ্রহ আটকে থাকায় গম খালাস শুরু করা যাচ্ছে না।

সূত্র জানায়, জুলাইয়ের শুরুতে দেশে গমের মজুত অর্ধেকে নেমে আসে। দুটি জাহাজে বিপুল পরিমাণ গম আনায় মজুত বাড়ছে। গমের বাজারেও ইতিবাচক প্রভাব পড়ছে। কয়েকদিন ধরে গমের বাজার নিম্নমুখী ভাব লক্ষ করা যাচ্ছে।

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
 কুষ্টিয়ার  বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর