বুধবার   ১৩ নভেম্বর ২০১৯   কার্তিক ২৮ ১৪২৬   ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

সর্বশেষ:
সারাদেশে নৌযান চলাচল বন্ধ ঘোষণা ১৩ জেলা প্রশাসনের সব কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি বাতিল ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ : মোংলা-পায়রা বন্দরে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত ফুটবল নিয়ে ব্যস্ত সাকিব আল হাসান ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’র কারণে আজ জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা স্থগিত শ্রমিকলীগের সম্মেলন উদ্বোধন করলেন শেখ হাসিনা

খোকসা পৌর আ. লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত

নিজস্ব প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৪ নভেম্বর ২০১৯  

দীর্ঘ ৭ বছর পর কোনোরকম অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই কুষ্টিয়ার খোকসা পৌর আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

সোমবার (৪ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ১১টায় খোকসা বাজারস্থ উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয় চত্বরে এই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। 

এ দিকে, বর্তমান সদ্য সাবেক পৌর কমিটির বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান বিটুকে সম্মেলন পরিচালনা করতে না দিয়ে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান টিপু দলের গঠনতন্ত্র মেনেই সম্মেলন পরিচালনা করেন। 

সম্মেলনে, কোনোরকম পাত্তা না পেয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে কাউন্সিল বর্জন করেন সম্মেলনের সভাপতিত্বের দায়িত্বে থাকা পৌর কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রফিকুল ইসলামসহ মিজানুর রহমান বিটু। এতে সায় ছিল খোকসা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বাবুল আখতারেরও।

তবে সম্মেলন বয়কট করলেও প্রধান অতিথির কাছে একটি কমিটির তালিকার খসড়া দিয়ে আসেন তারা। এ সময় তাদের অনুসারী নেতাকর্মীরাও সম্মেলন স্থান ত্যাগ করে অন্য জায়গায় অবস্থান নেয়। সেখানে তারা সংবাদ সম্মেলন করে আনুষ্ঠানিকভাবে সম্মেলন বর্জনের ঘোষণা দেন।

সাংবাদিক সম্মেলনে খোকসা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বাবুল আখতার বলেন, উপজেলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কমিটি গঠনের জেলা কমিটির পক্ষ থেকে যে কমিটির যে কমিটি গঠন করা হয়েছে- তা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সদর উদ্দিন খানের আজ্ঞাবহ কমিটি। আমরা এই কমিটির কার্যক্রমের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

তাদের অভিযোগ, গঠনতন্ত্র না মেনে সম্মেলন হওয়ায় তারা প্রতিবাদ করেছেন এবং সম্মেলন বয়কট করেছেন। এদিকে অল্প সংখ্যক নেতা-কর্মীরা সভা বয়কট করলেও সম্মেলনে তেমন কোনো প্রভাব পড়েনি।

সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বাবু স্বপন কুমার ঘোষ। প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন খোকসা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র তরিকুল ইসলাম। 

এ দিকে, এসব অভিযোগ সম্পর্কে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তারিকুল ইসলাম তারিক বলেন, মিজানুর রহমান বিটু নিজেকে কীভাবে পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দাবি করে। সে নিজেই গত তিন বছর আগে পৌর কমিটি থেকে পদত্যাগ করেছে। সে পদত্যাগ করায় পরে উপজেলা আওয়ামী লীগ রেজুলেশনের মাধ্যমে তাকে স্থায়ীভাবে দল থেকে অব্যাহতি দেয়। 

পরিচ্ছন্ন এই নেতা আরও বলেন, আমরা গঠনতন্ত্র মেনেই সম্মেলন পরিচালনা করেছি। কমিটির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান টিপু নিয়ম মেনেই পতাকা উত্তোলন ও সভা পরিচালনা করেছেন। 

সম্মেলনের দায়িত্বপ্রাপ্ত সূত্রে জানা যায়, বহুল প্রত্যাশিত সম্মেলনকে ঘিরে এবারে মোট ১০টি কমিটির তালিকা জমা পড়েছে নেতৃবৃন্দের কাছে। পরে যাছাই-বাছাই শেষে কমিটি ঘোষণা করবে কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামী লীগ। 

এই সম্মেলনকে ঘিরে তৃণমূল নেতারা বলছেন, মিজানুর রহমান বিটু দীর্ঘদিন খোকসা থেকে নির্বাসিত ছিলেন। সে হুট করে এসে কীভাবে নিজেকে সাধারণ সম্পাদক দাবি করে। সে বিভিন্ন সময় দলের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছিল। 

আর সম্মেলনেও বিতর্কিত বহুগামী এই নেতাকে হাইব্রিড নেতা বলে উল্লেখ করেন তৃণমূলের নেতারা।

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
 কুষ্টিয়ার  বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর