বুধবার   ১৩ নভেম্বর ২০১৯   কার্তিক ২৮ ১৪২৬   ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

সর্বশেষ:
সারাদেশে নৌযান চলাচল বন্ধ ঘোষণা ১৩ জেলা প্রশাসনের সব কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি বাতিল ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ : মোংলা-পায়রা বন্দরে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত ফুটবল নিয়ে ব্যস্ত সাকিব আল হাসান ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’র কারণে আজ জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা স্থগিত শ্রমিকলীগের সম্মেলন উদ্বোধন করলেন শেখ হাসিনা
২১

কুষ্টিয়ায় সাংবাদিক পরিবারকে হত্যার হুমকি

নিজস্ব প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১ নভেম্বর ২০১৯  

কুষ্টিয়ার আঞ্চলিক পত্রিকা দৈনিক সময়ের দিগন্তের স্টাফ রিপোর্টার ও দৌলতপুর রিপোর্টাস ক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক এস. এম সরোয়ার পারভেজ ও তার বাবা দৌলতপুর উপজেলার গরুড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আশরাফুল ইসলামকে হত্যার হুমকি দিয়েছে এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী তৌহিদুল ইসলাম। 

এ ঘটনায় ভূক্তভোগী ওই সাংবাদিক বাদী হয়ে বুধবার (৩০ অক্টোবর) দৌলতপুর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেছেন। যার নং ১৩৭৬।

স্থানীয়রা জানায়, তৌহিদুলের আপন বড় ভাই শহিদুল কিছুদিন আগে মাদকসহ পুলিশের হাতে ধরা পড়ে। এদিকে তারা এলাকাতে প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের কেউ কিছু বলার সাহস পায় না। 

জানা যায়, সম্প্রতি সাংবাদিক পারভেজের মালিকানাধীন একটি দোকানঘর ভাড়া নেয় তৌহিদুল। দোকান ভাড়ার সময় দোকানে কিছু কাজ করানোর জন্য তৌহিদুল দোকানদার পাঁচ হাজার টাকা খরচ করার দাবি করে হঠাৎ করে গেল মাসের ১৪ তারিখে ঘর ছেড়ে দেয়। তারপর সাংবাদিক পারভেজের বাবার কাছে ঐ ৫০০০ টাকা দাবি করে। 

ওই সাংবাদিকের বাবা তাকে বলেন, খুব সমস্যার মধ্যে থাকায় পরে টাকা দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেন। 

প্রতি উত্তরে তৌহিদুল জানায়, দুই মাস পরেই টাকা দিলে সমস্যা নেই।

এই ব্যাপারে সাংবাদিক পারভেজ জানান, গত ১৮ অক্টোবর বেলা ১২ টার সময় আমার মা তার দোকানের সামনে দিয়ে যাওয়ার সময় তাকে ডেকে সে টাকা চায়। ওই সময় আমার মা বলে, আমি সামনে মাসে ইন্ডিয়াতে যাবো ডাক্তার দেখাতে। এসে তোমার টাকা দিবো। এই কথা শুনে তৌহিদুল দোকানদার অকথ্য ভাষায় আমার মাকে গালিগালাজ শুরু করে এবং মারতে যায়। 

তিনি বলেন, এই বিষয়টি আমি রাতে জানতে পেরে টাকার ব্যবস্থা করে তাকে দিতে যাই এবং জানতে চাই যে কি জন্য আমার মাকে গালিগালাজ করেছে। 
তখন সে বলে, তোর মা যদি ছেলে হতো তাহলে বুঝিয়ে দিতাম। তখন তার কাছে জানতে চাই, আপনি কিসের জন্য এগুলো করছেন আর কি জন্য মাকে মারতে গেছেন। 

এসময় সে আমার উপরও চড়াও হয় এবং আমাকে মারধরের চেষ্টা করে। এমন সময় তার বাবা আব্দুল জলিল এসে আমাকে ধাক্কাধাক্কি করে এবং কিল ঘুষি মারে। পরে বাজারে আমার মামা আসায় তাকেও মারধরের চেষ্টা করে। ওই দিনই দৌলতপুর থানাতে একটি অভিযোগ দেই। অভিযোগ পেয়ে দৌলতপুর থানার এসআই মুরাদ তদন্ত করে আসেন। পুলিশ চলে আসার পরে বিবাদী আমাকে এবং আমার বাবাকে হত্যা ও মিথ্যা মামলার হুমকি দেয়। 

সাংবাদিক পারভেজের মামা হাফিজুর রহমান জানান, আমি একজন চক্ষু প্রতিবন্ধী। এর আগেও আমাকে তৌহিদুল মারধর করেছে এবং তার বাবা আব্দুল জলিল প্রায় আমাকে দেখে গালিগালাজ করতো। কিন্তু আমি কিছু বলতে পারতাম না।

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
 কুষ্টিয়ার  বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর