মঙ্গলবার   ১০ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২৫ ১৪২৬   ১১ রবিউস সানি ১৪৪১

কর্মবিরতি প্রত্যাহার শেষেও কুষ্টিয়ায় বন্ধ বাস চলাচল

নিজস্ব প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ২১ নভেম্বর ২০১৯  

কেন্দ্রীয় শ্রমিক সংগঠনগুলো কর্মবিরতি প্রত্যাহারের ঘোষণা দিলেও কুষ্টিয়ার সকল সড়কে বাস, ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। টানা ষষ্ঠ দিনের মতো এ জেলায় যান চলাচল বন্ধ রয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২১ নভেম্বর) সকালে কুষ্টিয়া শহরের মজমপুর গেটে গিয়ে দেখা যায়, কোন বাস চলাচল না করায় ইজিবাইক ও নসিমনে করে গন্তব্যে ছুটছেন যাত্রীরা। 

তবে মজমপুর গেট থেকে অল্প দূরে আলফার মোড় থেকে মিরপুর, ভেড়ামারা- দৌলতপুর, ইশ্বরদী রুটে চলাচল করছে। শহরের চৌড়হাস মোড় থেকে পোড়াদহ, ঝিনাইদহ এবং খোকসা কুমারখালি ও রাজবাড়ী সড়কে সিএনজি চলাচল করছে। তবে ভাড়া স্বাভাবিকের চেয়েও একটু বেশি নেওয়া হচ্ছে।

কেন্দ্রীয় শ্রমিক সংগঠনগুলো কর্মবিরতি প্রত্যাহারের ঘোষণা দিলেও কুষ্টিয়ার সকল সড়কে বাস, ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। টানা ষষ্ঠ দিনের মতো এ জেলায় যান চলাচল বন্ধ রয়েছে।

বাস মালিক সমিতির সভাপতি মকবুল হোসেন জানান, ‘ভাই, খুবই চেষ্টা করছি, কিন্তু কাজ হচ্ছে না। শ্রমিকেরা বাসের কাছেই আসতে চাইছে না। আমরা মালিকপক্ষ সড়কে বাস দিতে রাজি। কেন যে শ্রমিকেরা আসছে না, সেটা বধগম্য হচ্ছে না।’

জেলা বাস মিনিবাস মালিক গ্রুপের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি আতাহার আলী জানান, দুপুরে জেলা প্রশাসনের সঙ্গে দ্বিতীয়বারের মতো বৈঠক হয়। সেখানে বাস চালানোর জন্য মালিকেরা একমত হন। এরপর টার্মিনালে গিয়ে চালকদের বাস চালানোর কথা জানালে তাঁরা চালাবেন না বলে জানান। তাঁদের অনুরোধ করেও কাজ হচ্ছে না।

আজ দুপুরে চৌড়হাস ও মজমপুর এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, যাত্রীরা দাঁড়িয়ে আছেন। কেউ ঝুঁকি নিয়ে ইজিবাইকসহ তিন চাকার বিভিন্ন যানে গন্তব্যে যাচ্ছেন। মজমপুর এলাকায় দূরপাল্লার বাস কাউন্টারগুলোতেও কোনো টিকিট দেওয়া হচ্ছে না।

শাজাহান নামের এক বাসচালক জানান, বর্তমানে যে আইন কার্যকর হয়েছে, তা আপাতত শিথিল হলেই আমরা রাস্তায় বাস চালাবো।

কুষ্টিয়া বাস-মিনিবাস শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আফজাল হোসেন জানান, কেন্দ্রের সিদ্ধান্তে কর্মবিরতি প্রত্যাহার করার কথা বললেও পরিবহন শ্রমিকরা কথা মানছেন না। তারা তাদের নিজেদের সিদ্ধান্তেই কর্মবিরতি পালন করছে।

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
 কুষ্টিয়ার  বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর