রোববার   ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২   আশ্বিন ৯ ১৪২৯   ২৮ সফর ১৪৪৪

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
সর্বশেষ:
দেশে ১৩ কোটি ইন্টারনেট ব্যবহারকারী: আইসিটি প্রতিমন্ত্রী অতিরিক্ত ভাড়া আদায় ঠেকাতে রাজধানীতে বাসে ই-টিকিট চালু স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা মানা হয়নি অনেক মণ্ডপে চার বিভাগে ভারি বর্ষণ, আরো ৪ দিন বৃষ্টি
৩৭

আখ চাষে ঘুরে দাঁড়ালেন ভেড়ামারার তিন যুবক

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২২  

ফিলিপাইন কালো জাতের আখ চাষ করে সফলতা পেয়েছেন কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলার তিন যুবক। ঘুরে গেছে তাঁদের ভাগ্যের চাকা। ফলন ভালো হওয়ায় তাঁদের মুখে এখন মিষ্টি হাসি। তাঁরা জানান, সব খরচ বাদ দিয়ে এবার ৮ লাখ টাকা লাভ হবে। ভবিষ্যতে খরচ আরও কম হবে এবং লাভের পরিমাণ বাড়বে।

জানা গেছে, উপজেলার ধরমপুর ইউনিয়নের সাতবাড়ি মণ্ডলপাড়ায় ৪ বিঘা জমিতে বিদেশি জাতের কালো আখ চাষ শুরু করেন ওই গ্রামের মনিরুল, ফারুক ও রাশেদুল। আখ চাষ শুরু করতে বীজ সংগ্রহ, জমি বর্গা নেওয়া, পরিচর্যা, সার, সেচসহ অন্যান্য খরচ অনেক। সে সময় অনেকেই বলেছিলেন, হবে না। এত টাকা জলে গেল। জমিতে ধীরে ধীরে আখের চারা বেড়ে উঠতে শুরু করে। এক একটি আখ চারা এখন ১২-১৪ ফুট লম্বা এবং ৫-৬ ইঞ্চি ব্যাসে মোটা হয়েছে। বিক্রিও শুরু করেছি। ব্যাপারী ও খুচরা ব্যবসায়ীরা এসে কিনে নিচ্ছেন।

উদ্যোক্তাদের একজন রাশেদুল ইসলাম। তিনি বলেন, সবজি, মরিচসহ অন্যান্য ফসল চাষ করে কয়েকবার লোকসান হয়েছিল। এতে ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়ি। এ জাতের আখ চাষে খরচ কম, তেমন কষ্ট নেই, কিন্তু লাভ বেশি।  

উদ্যোক্তা মনিরুল ইসলাম জানান, একজনের পরামর্শে এবং তাঁর থেকে বীজ সংগ্রহ করে তিন বন্ধু মিলে ৪ বিঘা জমিতে ফিলিপাইন কালো ও কিছু পাকিস্তান সাদা জাতের আখ চাষ শুরু করেন। জমি ইজারা, বীজ, সার, সেচ, শ্রমিক, পরিচর্যাসহ অন্যান্য খরচ মিলে ৫ লাখ টাকা ব্যয় হয়েছে।

মনিরুল বলেন, ‘আশা করছি, ১২ থেকে ১৩ লাখ টাকার আখ বিক্রি হবে। ইতিমধ্যে ৩ লাখ টাকার আখ বিক্রি করেছি।’ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শায়খুল ইসলাম বলেন, উপজেলায় এই প্রথম বাণিজ্যিকভাবে এ জাতের আখের চাষ হচ্ছে। অধিক লাভজনক হওয়ায় কৃষকদের মধ্যে আগ্রহও বাড়ছে। 

 কুষ্টিয়ার  বার্তা
 কুষ্টিয়ার  বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর